মাহদি আল হাসান, পটুয়াখালী জেলা প্রতিনিধিঃ শেষ হলো পটুয়াখালী ৭টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ। সকাল ৮টা থেকে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা মধ্যদিয়ে শুরু হয়। সকাল থেকেই ভোটারদেরকে ফুরফুরে আমেজে ভোট দিতে দেখা যায়। ভোটারের উপস্থিতিও ভাল ছিল। তবে দিন যত গড়ায় কেন্দ্রের অবস্থা ততো বেশি উত্তপ্ত ও অস্থিতিশীল হতে থাকে।

ভোটকেন্দ্রগুলো ঘুরে আমাদের সংবাদদাতা জানান, ডালবুগঞ্জ ইউনিয়নের ৪ ও ৮নং কেন্দ্রে ভোট টেবিলে নেয়ার চেষ্টা করেছে নৌকা প্রার্থীর সমর্থকরা। এছাড়া প্রশাসনের সামনেই লেবুখালী ইউনিয়নের ১, ২, ৩ ও ৪নং ভোট কেন্দ্র থেকে চেয়ারম্যান প্রার্থীর ব্যালট ছিনিয়ে নেয়া হয়েছে। একাধিক কেন্দ্র ছিল ক্ষমতাসীন সন্ত্রাসীদের হাতে জিম্মি। ধানখালী ও চম্পাপুর ইউনিয়ন ব্যতীত কোথাও সুষ্ঠু নির্বাচন পরিলক্ষিত হয়নি। অবশ্য নির্বাচনী প্রচারণা চলাকালীন আওয়ামী সন্ত্রাসী কর্তৃক হাতপাখার প্রার্থী কয়েকবার হামলার স্বীকার হয়েছেন এবং ভোটারদেরকে বিভিন্ন ভয়ভীতিও দেখানো হয়েছে।

নির্বাচনে প্রাপ্ত তথ্যমতে আমাদের হাতে যে ফলাফল এসে পৌঁছেছে তার মধ্যে ডালবুগঞ্জ ইউনিয়ন নির্বাচনে নৌকা প্রতীক ৩৫০০ এর ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছে, হাতপাখা প্রতীক ২২৮২ ভোট পেয়ে ২য় এবং ধানের শীষ ৪০০ এর অধিক ভোট পেয়ে ৩য় হয়েছে।

বালিয়াতলী ইউনিয়ন নির্বাচনে নৌকা প্রতীক ৭৮২৪ পেয়ে প্রথম, হাতপাখা প্রতীক ১১০৯ ভোট পেয়ে ২য় এবং ধানের শীষ ৮৫৮ ভোট পেয়ে ৩য় হয়েছে।

ধানখালী ইউনিয়ন নির্বাচনে ঘোড়া প্রতীক ৩৯০০ এর অধিক ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন, নৌকা প্রতীক ১৬০০ এর অধিক ভোট পেয়ে ২য় এবং হাতপাখা প্রতীক ১৫৭৪ ভোট পেয়ে ৩য় স্থান অর্জন করেছে।

শ্রীরামপুর ইউনিয় নির্বাচনে আওয়ামীলীগের নৌকা প্রতীক ৪১২৫ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছে। ইসলামী আন্দোলনের হাতপাখা প্রার্থী ১,৭০৫ ভোট পেয়ে ২য় হয়েছেন।

মিঠাগঞ্জ ইউনিয়ন নির্বাচনে নৌকা প্রতীক ৪৫০০ এর অধিক ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছে, হাতপাখা প্রতীক ১০৭৯ ভোট পেয়ে ২য় এবং ধানের শীষ ৪২৫ পেয়ে ৩য় হয়েছে।

লেবুখালী ইউনিয়নে হাতপাখা প্রতীক ভোট ১৩৬৩ ভোট পেয়ে ২য় স্থান অর্জন করেছে। অবশ্য এই ইউনিয়নে ইসলামী আন্দোলন নির্বাচন বর্জন করেছে। এছাড়া চম্পাপুর ইউনিয়ন নির্বাচনে ৮৮৮ ভোট পেয়ে ৩য় স্থানে আছে।

৭টি ইউনিয়নে মোট প্রাপ্ত ভোটের সংখ্যা ১০,০৬১টি। এর মধ্যে ৫টিতে ২য় ও ২টিতে ৩য় স্থানে রয়েছে।

Facebook Comments