| |

হাতপাখা নিয়ে নতুন ভোটারদের ভাবনা

প্রকাশিতঃ ৮:৪৮ অপরাহ্ণ | ডিসেম্বর ২৫, ২০১৮

এম.এস আরমান, বিশেষ প্রতিনিধি: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ৩০০ আসনে প্রার্থী দিয়ে ২৯৯ টি আসনের বৈধতা পেয়ে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনোনীত প্রার্থীরা এবার লড়বেন হাতপাখা প্রতীক নিয়ে। নির্বাচন কমিশনের তালিকা অনুযায়ি বর্তমান ভোটার সংখ্যা ১০ কোটি ১৪ লাখের বেশি। মৃত ১৭ লাখ বাদ দিয়ে নতুন ভোটারদের নিয়ে বর্তমানে ভোটার সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১০ কোটি ৪০ লাখের মতো। যারা একাদশ সংসদ নির্বাচনে ভোট দেবেন, এ বছর হালনাগাদে নতুন ভোটার যোগ হয়েছে ৪৩ লাখ ২০ হাজারের মতো। তাই সবার দৃষ্টি এখন নতুন ভোটারদের দিকে।

এখনকার নতুন ভোটাররা যথেষ্ট যুগসচেতন। সহজেই কাউকে কোন প্রকার প্রলোভন দিয়ে ভোলানো যাবে না। বিগত আমলে কারা কি প্রতিশ্রুতি দিয়েছে, কে কতটুকু কাজ করেছে, কাদের কথায় ও কাজে মিল আছে, কারা দুর্নীতিগ্রস্ত, কাদেরকে ভোট দিলে ভোটের আমানত অক্ষুণ্ণ থাকবে তা সব বিবেচনা করেই এবার জীবন প্রথম দেয়ার জন্য মনস্থির করেছে তারা। এমন কিছু যুগসচেতন স্বপ্নবাজ তরুণ ভোটারদের সাক্ষাৎকার নিয়েছেন আইএবি নিউজের বিশেষ প্রতিবেদক এম.এস আরমান

চট্রগ্রাম-৭ (রাঙ্গুনিয়া) আসনে নতুন ভোটার মুহা. ফারুক। জীবনের প্রথম ভোট নিয়ে তার অনুভূতি জানতে চাইলে তিনি আমাদের প্রতিনিধিকে জানান, আগে এমপি, মন্ত্রী এসব পদে ভালো মানুষেরা আসতো না তাই চুরি, ডাকাতি, সন্ত্রাসী এসব বেশি হতো। আলেমরা নির্বাচনী মাঠে নেমে আসায় এখন তা বন্ধ হবে। এমন আশা নিয়েই এবার জীবনের প্রথম ভোট কোন আলেম প্রার্থীকে দেয়ার ইচ্ছে করেছি। আমার এই আসনে হাতপাখা প্রতীকে প্রার্থী হয়েছেন মাওলানা নেয়ামত উল্লাহ। একজন সৎ, নেক্কার ও মুত্তাকী আলেম হিসেবে তাকেই ভোট দিবো।

নোয়াখালী-৫ আসনের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার মুছাপুর থেকে নতুন ভোটার মো: সোহেল তার জীবনের প্রথম কাকে দিবেন জানতে চাইলে বলেন, জীবনের প্রথম ভোট টাকার কাছে বিক্রি করতে চাইনা, একজন সুন্নাতপ্রেমী আলেমকে ভোট দিবো এটাই আমার সবচাইতে বড় আনন্দের বিষয় হবে। যেহেতু আমাদের আসনে মাও: আবু নাছের হাতপাখা প্রতীকে প্রার্থী হয়েছেন, তাই জীবনের প্রথম ভোট ইসলামের পক্ষে তাকেই দিবো ইনশাআল্লাহ।

কিশোরগঞ্জ-২ আসন (চরফরাদী ইউনিয়ন) থেকে প্রবাসী ভোটার মো: কবির হোসেন আগামী ৩০ শে ডিসেম্বর জীবনের প্রথম ভোট দিতে প্রস্তুত। জীবনের প্রথম ভোট নিয়ে তার ইচ্ছা, পছন্দ ও অনুভুতি জানতে চাইলে বলেন, ভোট নিয়ে আমি যেমন আনন্দিত তেমনি আতঙ্কিত। কারণ ছোট বেলায় দেখতাম ভোটের সময় মানুষজনের মাঝে ঈদের আমেজ বিরাজ করতো। সবার মাঝেই একটি খুশির আবেশ বজায় থাকতো। পাড়া-মহল্লায় ছোট বড় সবাই এই আনন্দে শরিক হতো, নিজের পছন্দের প্রার্থীর পক্ষে স্লোগান ধরতো। আর এখনকার চিত্র পালটে গেছে। জেল-জুলুম, খুন ও নৈরাজ্য ছাড়া কিছুই দেখিনা। অর্বত্রই আতঙ্ক ও ত্রাসের রাজত্ব কায়েম হয়েছে। প্রবাসজীবনের কষ্টের সাগর থেকে কিছু সময় মুক্তি পেতে দেশে এসেও আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে থাকতে হচ্ছে প্রতিমুহুর্ত। এসবের অবসান দরকার। তাই এবার সিদ্ধান্ত নিয়েছি, যত যাই হোক জীবনের প্রথম ভোট ইসলামের পক্ষে হাতপাখায় দিবো ইনশা আল্লাহ।

4396Shares