ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর আমীর মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম পীর সাহেব চরমোনাই বলেছেন, নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পূর্বে জাতীয় সংসদ ভেঙ্গে দিতে হবে। তিনি নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন করে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দেয়ারও দাবি জানান। নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার গঠনের পর থেকে সেনা মোতায়েন এবং নির্বাচনের দিন তাদের হাতে বিচারিক ক্ষমতা দিতে হবে।

পীর সাহেব রেডিও, টিভিসহ সকল সরকারী বেসরকারী গণমাধ্যমে সকলকে সমান সুযোগ দেয়ার দাবি করেন। তিনি রাজনৈতিক নেতা কর্মীদেরকে হয়রানী বন্ধ ও সকল মামলা প্রত্যাহার দাবি করেন। দুর্নীতিবাজদেরকে নির্বাচনে অযোগ্য ঘোষণা এবং ইভিএম ব্যবহার বন্ধ রাখতে হবে।

পীর সাহেব চরমোনাই বলেন, দুর্নীতি ও সন্ত্রাস সমাজের রন্দ্রে রন্দ্রে ঢুকে পড়েছে। টিআইবি’র রিপোর্ট অনুযায়ী সরকারের অধিকাংশ মন্ত্রী-এমপিরা দুর্নীতিতে নিমজ্জিত।

তিনি বলেন, মাদক যুব সমাজকে গ্রাস করে ফেলেছে। মাদকমুক্ত দেশ গঠন করতে হলে ইসলামের ছায়াতলে সকলকে ফিরে আসতে হবে। একমাত্র ইসলামই পারে সন্ত্রাস, দুর্নীতি ও মাদকমুক্ত সমাজ ও রাষ্ট্র উপহার দিতে। তাই আগামী নির্বাচনে পরীক্ষিত দুর্নীতিবাজদের বয়কট করে হাতপাখার পক্ষে ব্যালট বিপ্লব ঘটাতে হবে।

বৃহস্পতিবার (১১ অক্টোবর’১৮) বিকাল ৩টায় নীলফামারী জেলার উদ্যোগে নীলফামারী পৌরসভা মাঠে দুর্নীতি, দুঃশাসন, সন্ত্রাস ও মাদকমুক্ত কল্যাণরাষ্ট্র প্রতিষ্ঠাসহ অবাধ, সুষ্ঠু নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠানের দাবিতে অনুষ্ঠিত বিশাল জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

জেলা সভাপতি মাওলানা শেখ মুহাম্মদ আব্দুস সামাদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত জনসভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন দলের নায়েবে আমীর মাওলানা আবদুল হক আজাদ, যুগ্ম মহাসচিব অধ্যাপক মাওলানা এটিএম হেমায়েত উদ্দিন, ছাত্র আন্দোলনের সেক্রেটারী জেনারেল এম. হাছিবুল ইসলাম, যুবনেতা ইঞ্জিনিয়ার আতিকুর রহমান মুজাহিদ। হাজী মুহাম্মদ ইয়াছিন আলী ও সেক্রেটারী মাওলানা আসাদুজ্জামানের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত জনসভায় জেলা নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

Facebook Comments