ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-আমীর মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম পীর সাহেব চরমোনাই বলেছেন, ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনে মানুষের মতামতের প্রতিফলন ঘটেনি। নির্বাচন একপেশে ও জালিয়াতির নির্বাচন হয়েছে। ভোট ডাকাতির মাধ্যমে মানুষের অধিকার হরণ করা হয়েছে। মানুষ মৌলিক অধিকার ও ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠা করতে পারেনি। প্রহসনের নির্বাচনের ফলাফল বাতিল করে নির্দলীয় সরকারের অধীনে নতুন নির্বাচন দিতে হবে।

সোমবার (৭ জানুয়ারি’১৯) বিকেলে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর প্রেসিডিয়ামের এক সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। বরিশালের চরমোনাইস্থ আমীরের বাসভবনে অনুষ্ঠিত প্রেসিডিয়ামের সভায় উপস্থিত ছিলেন নায়েবে আমীর মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম, মাওলানা আব্দুল হক আজাদ, মাওলানা আব্দুল আউয়াল পীর সাহেব খুলনা, মহাসচিব প্রিন্সিপাল হাফেজ মাওলানা ইউনুছ আহমাদ, প্রেসিডিয়াম অধ্যক্ষ মাওলানা সৈয়দ মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল-মাদানী, ডা. মুখতার হুসাইন, আল্লামা নুরুল হুদা ফয়েজী, রাজনৈতিক উপদেষ্টা অধ্যাপক আশরাফ আলী আকন, যুগ্ম মহাসচিব অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান ও মাওলানা গাজী আতাউর রহমান প্রমুখ।

প্রেসিডিয়ামের সভায় গভীর উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করে বলা হয়, নির্বাচন পরবর্তীতে সারাদেশে সরকার দলীয় ক্যাডার ও পুলিশ নেতাকর্মীদের হামলা, মামলা দিয়ে হয়রানী করছে। তিনি নেতাকর্মীদের হামলা-মামলা ও হয়রানী বন্ধের দাবি জানান। পীর সাহেব চরমোনাই বলেন, মানুষের মৌলিক ও ভোটাধিকার আজ ভুলুন্ঠিত।

এভাবে একটি দেশ চলতে পারে না। সভায় ১৫ জানুয়ারী মজলিসে শুরা অধিবেশন, ১৬ জানুয়ারী ৩০০ আসনে প্রতিদ্বন্ধিতাকারী প্রার্থীদের নিয়ে এক সভা এবং মানুষের মৌলিক অধিকার এবং ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠায় প্রেসিডেন্টের বরাবরে স্মারকলিপি প্রদানের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

Facebook Comments