শুক্রবার (১৯ অক্টোবর) ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ বগুড়া জেলাধীন শেরপুর উপজেলা শাখার কর্মী তারবিয়াত শেরপুর জামিয়া কারীমিয়া মাদরাসায় অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর আমীর (পীর সাহেব চরমোনাই) মনোনীত বগুড়া-৫ (শেরপুর-ধুনট) সংসদীয় আসনের সংসদ সদস্য প্রার্থী প্রভাষক মীর মুহাঃ মাহমুদুর রহমানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর নায়েবে আমীর হযরত মাওঃ আব্দুল আওয়াল (খলিফা চরমোনাই)।

তিনি কর্মী তারবিয়াতে বলেন, ইসলামী শাসন কায়েমের জন্য ২টি শর্ত। ১. নিবেদিত কর্মী তৈরী করা। যেমন- আল্লাহর রাসূল সা. মক্কাতে ছাহাবায়ে কেরামদের তৈরী করেছিলেন। তারা ছিলেন নিবেদিতপ্রাণ কর্মী। ২. সাধারণ জনগণের ইসলামী শাসন চাওয়া। যেমন- মদীনার সকলেই রাসূল স. কে বরণ করে নিয়ে ইসলামী শাসনের প্রতি অনুরাগ প্রকাশ করেছিলেন।

তিনি বলেন, আমাদের বাংলাদেশে বিএনপি-আওয়ামী লীগও ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য কালেমা, বিসমিল্লাহ, হজ্ব, নামাজ ইত্যাদির অজুহাত দেখায়। অতএব বুঝা গেল যে বাংলাদেশের মানুষ ইসলাম চায়। তাইএখন আমাদেরকে নিবেদিতপ্রাণ একঝাঁক কর্মীবাহিনী তৈরী হতে হবে।

তিনি উপস্থিত সকলকে উদ্দেশ্য করে বলেন, আজকের এই মজলিসে যতগুলো লোক রয়েছে তাদের দ্বারাই পুরো শেরপুর কাঁপিয়ে তোলা সম্ভব।নিবেদিত প্রাণ কর্মী হতে ৩ টি শর্ত। ১. দ্বীনের কাজকে দুনিয়ার কাজের উপর প্রাধান্য দেওয়া। ২. সংগঠনের সকল বৈঠকে সময়মত উপস্থিত হওয়া।৩. আল্লাহর রাস্থায় অর্থ সম্পদ দিয়ে সহযোগিতা করা।

এতে আরও উপস্থিত ছিলেন উপজেলা ইসলামী আন্দোলন সভাপতি হাফেজ মুহাঃ দেলোয়ার হোসেন, সহ-সভাপতি ডাঃ মুহাঃ সোলাইমান, সেক্রেটারি মাওঃ মুহা. ফাহিম উদ্দিন, জয়েন্ট সেক্রেটারি মুহাঃ এরশাদ আলী, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ডাঃ মুহাঃ শরিফুল ইসলাম, সহঃপ্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক  মুহাঃ হায়দার আলী, সরকার অর্থ সম্পাদক মুহাঃ রাকিবুল হাসান, প্রশিক্ষণ সম্পাদক মুহাঃ আমজাদ হুসাইন মাষ্টার, ইসলামী শ্রমিক আন্দোলনের সেক্রেটারি মুহাঃ আবু নোমান, ইসলামী যুব আন্দোলনের সেক্রেটারি মুহাঃ সোহাইল রানা, ইশা ছাত্র আন্দোলনের সভাপতি মুহাঃ আলিফ হুসাইন, সহ-সভাপতি মুহাঃ জাহিদুদ্দীন আল আজাদ, সাধারণ সম্পাদক মুহাঃ ওমর ফারুক, অর্থ সম্পাদক মুহাঃ হাসেম আলী সহ আরও অনেকে।

Facebook Comments