| |

সিটি নির্বাচনে ব্যর্থ জোট শাসনের বিকল্প বলয়ের জানান দিচ্ছে ইসলামী আন্দোলন

প্রকাশিতঃ ৭:৪৫ অপরাহ্ণ | জুলাই ০৪, ২০১৮

আব্দুল ওহাব : ইসলামী সমাজব্যবস্থার সুফল জনগণের দ্বারে দ্বারে পৌঁছে দিতে অক্লান্ত পরিশ্রম চালিয়ে যাচ্ছে দেশের প্রখ্যাত আলেম পীর সাহেব চরমোনাই নেতৃত্বাধীন গণমুখী সংগঠন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ। খুলনা, গাজীপুর, রংপুর, নারায়ণগঞ্জসহ ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে অংশ নিয়ে তৃতীয় স্থান অর্জন করেন সংগঠনটির মেয়র প্রার্থীরা। ৩০ জুলাই অনুষ্ঠিতব্য তিন সিটি নির্বাচনেও মেয়র প্রার্থী দিয়েছে ইসলামী আন্দোলন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এককভাবে অংশ নেওয়ার ঘোষণা দিয়ে সবার আগে ৩০০ আসনের প্রার্থী চূড়ান্ত করেছে এ দলটি। জানতে চাইলে ইসলামী আন্দোলনের মহাসচিব অধ্যক্ষ ইউনুছ আহমাদ বলেন, সিটি করপোরেশন নির্বাচনগুলোতে এত অনিয়ম না হলে ভোটের ফলাফল অন্যরকম হতো। তিনি বলেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে আমরা ৩০০ আসনের প্রার্থী প্রাথমিকভাবে চূড়ান্ত করেছি।

গাজীপুর সিটি ভোটে ইসলামী আন্দোলনের মেয়র প্রার্থী মো. নাসিরউদ্দিন হাতপাখা ২৬ হাজার ৩৮১ ভোট পান। এবারই প্রথম এ সিটিতে অংশ নেয় দলটি। খুলনা সিটির নির্বাচনেও অংশ নিয়ে ইসলামী আন্দোলন পায় ১৪ হাজার ৩৬৩ ভোট। জাতীয় সংসদের বিরোধী দল জাতীয় পার্টির মেয়র প্রার্থী পান ১ হাজার ৭২৩ ভোট।

এর আগে ঢাকার দুই সিটির নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির পরেই তৃতীয় অবস্থানে ছিল ইসলামী আন্দোলন। ঢাকা সিটি উত্তরে ইসলামী আন্দোলন প্রার্থী অধ্যক্ষ শেখ ফজলে বারী মাসঊদ পেয়েছিলেন ১৮ হাজার ভোট। আর দক্ষিণে আলহাজ্ব আবদুর রহমান পান ১৫ হাজার ভোট। আলহাজ্ব আবদুর রহমান জানান, সরকারি দলের ভোট জালিয়াতির কারণে ভোট গ্রহণ শুরুর আড়াই ঘণ্টা পরই নির্বাচন বর্জন করেছিলাম। অনিয়ম না হলে ইসলামী আন্দোলনের হাতপাখা প্রতীকেরই জয় হতো। এ ছাড়া নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে অংশ নিয়ে ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী মুফতি মাসুম বিল্লাহ সাড়ে ১২ হাজার ভোট পেয়ে তৃতীয় স্থান অর্জন করেন। বেশ কয়েকটি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনেও বিজয় ছিনিয়ে আনে ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থীরা। জানতে চাইলে কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক আহমদ আবদুল কাইয়ুম বলেন, তিন সিটিতেই ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী দেওয়া হয়েছে। সুষ্ঠু ভোট হলে আমাদের সঙ্গেই প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে। ১৯৮৭ সালে মাওলানা সৈয়দ মুহাম্মাদ ফজলুল করীম (পীর সাহেব চরমোনাই) -এর হাত ধরে দলটির যাত্রা শুরু হয়। ২০০৮ সালের জাতীয় নির্বাচনে ১৬০ আসনে একক প্রার্থী দিয়ে মোট ভোটের এক শতাংশের বেশি ভোট পায় সংগঠনটি।

865Shares