| |

প্রস্তুত চরমোনাই ময়দান: ২দিন বাকি থাকতেই লাখো মানুষের জমায়েত

প্রকাশিতঃ ১১:০৫ পূর্বাহ্ণ | মার্চ ০৫, ২০১৮

ময়দান থেকে আশরাফ সোহান : আজ ৫ মার্চ। কির্তনখোলা নদীর পাড়ে দাড়ালে দেখা যাচ্ছে লঞ্চে ভরে জামাত বেধে মানুষ আসছে। যদিও এখনো মাহফিল শুরু হতে ২ দিন বাকি।

মাহফিলের জন্য একটি ৫০ শয্যা বিশিষ্ট অস্থায়ী হাসপাতালের ব্যবস্থা করা হয়েছে। যেখানে সেবা দিবে এমবিবিএস ডাক্তার সহ দেশের সেরা ডাক্তারগণ। রয়েছে এম্বুলেন্স ব্যবস্থা। এছাড়াও মাঠের সবখানে রোগী বহনকারী ট্রেজার সহ সেচ্ছাসেবক। অসুস্থ হওয়ার সাথে সাথেই রোগী  চলে হাসপাতালে।

বিদ্যুৎ বিভাগের জন্য রয়েছে আলাদা টিম। আছে ভিন্ন ইউনিফর্মে এলএমটি বিভাগ। মাঠে আসলেই দেখতে পাবেন কালো পোষাক পরিহিত নিরাপত্তা বাহিনী৷

এছাড়াও নতুনদের কাছে ভালো লাগার বিষয় হতে পারে প্রত্যেক খাবার দোকানে পীর সাহেব কর্তৃক খাবারের নির্দিষ্ট তালিকা টাঙ্গানো। খাবারের দাম যাচাই করতেও সেচ্ছাসেবক তৎপরত থাকবেন।

আগামী ৭ মার্চ থেকে শুরু হতে যাচ্ছে চরমোনাই বার্ষিক ফাল্গুনের মাহফিল। সেদিন বাদ যোহর আমীরুল মুজাহিদীন হযরত পীর সাহেব হুযুরের উদ্বোধনি বয়ানের মধ্যদিয়ে শুরু হবে এই মাহফিল।

চরমোনাই মাহফিল চারটি মাঠে অনুষ্ঠিত হবে। এ মুহুর্তে চারটি মাঠই প্রস্তত। দেশ বিদেশ থেকে অগণিত মানুষ আসছেন, অবস্থান নিচ্ছেন সুবিধা মত জায়গায়। দেশের বাহির থেকে বিদেশী জামাত আছেন। এছাড়াও দেওবন্দ, সৌদী আরব, মালশিয়া সহ বিশ্বের ইসলামী স্কলারগণ যথারীতি থাকবেন। ইতোমধ্যে দেওবন্দের সিনিয়র মুফতি সাহেব চরমোনাই মাহফিলের উদ্দেশ্যে বাংলাদেশে অবস্থান করছেন। আরো অর্ধ ডজন আসাতিয়াযে দেওবন্দ মাহফিলে অংশ নিবেন। দেশের মুসল্লিদের পাশাপাশি মাহফিলে দেশ-বিদেশ থেকে আগত আলেম-ওলামা ও বিশিষ্ট মেহমানদের জন্য রয়েছে আলাদা মেহমানখানা।

তিন দিনব্যাপী মাহফিলে প্রতিদিন ফজর ও মাগরিবের নামাজের পর পীর সাহেব ও তার নায়েবে আমীর মুফতি সৈয়দ মো. ফয়জুল করীম (পীরে কামেল চরমোনাই)-এর বয়ান ছাড়াও দেশবরেণ্য ওলামায়ে কেরাম বয়ান পেশ করবেন।

ওলামায়ে কেরামের মধ্যে রয়েছেন মাওলানা মোবারক করীম, প্রিন্সিপাল মাওলানা সৈয়দ মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল মাদানী, মুফতি সৈয়দ এছহাক মো. আবুল খায়ের, মরহুম পীর সাহেবের খলিফা মাওলানা আব্দুর রশিদ (পীর সাহেব বরগুনা), আল্লামা নুরুল হুদা ফয়েজী (পীর সাহেব কারীমপুর), অধ্যক্ষ মাওলানা ইউনুছ আহমাদ (পীর সাহেব খুলনা) উল্লেখযোগ্য।

মাহফিলের নিরাপত্তা ও শৃঙ্খলা রক্ষায় রয়েছে নিজস্ব চৌকষ সেচ্ছাসেবক টিম। এছাড়াও প্রায় ১০০টি ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরার মাধ্যমে সবকটি মাঠের নিরাপত্তা মনিটরিং করা হচ্ছে। হাজারো মাইকের মাধ্যমে সব মাঠে বয়ান শোনার ব্যবস্থা রয়েছে। নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় হাই ভোল্টেজ অটো জেনারেটর রয়েছে। মুসল্লিদের খাবার পানি ও ওজু-গোসলের জন্য বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের ব্যবস্থা রয়েছে সবকটি মাঠে।

দেশ-বিদেশ থেকে ঘরে বসে যাতে সবাই মাহফিলের ভিডিওসহ বয়ান শুনতে পারেন সেজন্য www.charmonaivs.net/live ওয়েবসাইটের মাধ্যমে সরাসরি সম্প্রচার করা হচ্ছে মাহফিল।

তিন দিনব্যাপী মাহফিলে নিয়মিত বয়ান ছাড়াও দ্বিতীয় দিন বেলা ১১টায় ওলামা ও সুধী সম্মেলন এবং তৃতীয় দিন বেলা ১১টায় ছাত্র গণজমায়েত অনুষ্ঠিত হবে।

6067Shares