| |

প্রসঙ্গ: ত্রাণ বিতরণে ব্যানার এবং ছবি কেন?

প্রকাশিতঃ ১২:১৮ অপরাহ্ণ | সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৭

আব্দুর রহমান গিলমান : সম্প্রতি ফেসবুকে কিছু ভাই ত্রাণ বিতরণের সময় ব্যানার ব্যবহার এবং ছবি তোলা নিয়ে আপত্তি তুলেছেন৷ তারা বলতে চাচ্ছেন – ত্রাণ বিতরণের সময় ব্যানার ব্যবহার এবং ছবি উঠানোর দ্বারা নিজেদের স্বার্থ হাসিল করা হচ্ছে৷ তবে দুঃখজনক বাস্তবতা হল- এই আপত্তিটা ইসলামী আন্দোলনের ক্ষেত্রেই তারা করে থাকেন৷ রাতকানাদের মতো অন্যদের ক্ষেত্রে তারা নীরব থাকেন৷ এই প্রসঙ্গে আমার ঐসব দোস্ত আহবাবকে বলতে চাই-
এদেশে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ একমাত্র ইসলামী সংগঠন – যে প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে আজ পর্যন্ত তার লক্ষ্যের ওপর অটল থেকে আল্লাহর জমিনে আল্লাহর দীন বাস্তবায়নের কাজ করে যাচ্ছে ৷ ইসলামী আন্দোলন তার এই লক্ষ্যপানে পৌঁছতে অনেকদূর যেতে হবে৷ ইসলামী আন্দোলনের প্রতি মানুষকে আস্থাশীল করতে হবে৷ সর্ব শ্রেণি, পেশার মানুষের কাছে ইসলামী আন্দোলনের আওয়াজ পৌঁছে দিতে হবে৷ ইসলামের পক্ষে মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করতে হবে৷ যার জন্য ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ বরাবরই মাঠে ময়দানের কর্মসূচির পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক কর্মসূচি গ্রহণ করে থাকে৷ বিভিন্ন দুর্যোগে ইসলামী আন্দোলন অনেকটা অগ্রগামী ভূমিকা রেখেই ত্রাণ নিয়ে ছুটে যায় ক্ষতিগ্রস্তদের কাছে৷

আলহামদুলিল্লাহ, এর সুফলও আমরা দেখতে পাচ্ছি৷ ইসলামী আন্দোলনের প্রতি মানুষ আস্থাশীল হচ্ছে৷ আ.লীগ, বিএনপি সহ বিভিন্ন বস্তুবাদি রাজনীতি ছেড়ে মানুষ ইসলামী আন্দোলনের প্রতি ধাবিত হচ্ছে৷ মানুষের আস্থা অর্জন এবং ইসলামী আন্দোলনের দাওয়াত সকলের কাছে পৌঁছে দিতে এ সকল কর্মসূচিতে ব্যানার ব্যবহার অবশ্যই প্রয়োজন ৷ প্রচার মাধ্যম ব্যবহার করে তা সমস্ত দেশবাসী এবং বিশ্ববাসীর নিকট তুলে ধরা একান্ত আবশ্যক ৷ আপনি যদি মনে করেন যে, ইসলামী আন্দোলন এ সকল কর্মসূচিতে ব্যানার এবং ছবি ব্যবহার করে স্বার্থ হাসিল করতে চাচ্ছে – আমি বলব, অবশ্যই ৷ স্বার্থ ছাড়া তো আমরা কোন ইবাদতই করি না৷ আমাদের ইবাদতে আল্লাহর সন্তুষ্টির স্বার্থ থাকে৷ আমাদের মাদরাসাগুলোর ওয়াজ মাহফিলে মাদরাসার উন্নয়নের জন্য অর্থ সংগ্রহের স্বার্থ থাকে৷ তদ্রুপ ইসলামী আন্দোলনও এ সকল কর্মসূচি দ্বারা ইসলামের প্রতি মানুষের সমর্থন আদায়, ইসলামী খিলাফত প্রতিষ্ঠার লক্ষে ইসলামী আন্দোলনের প্রতি মানুষকে আস্থাশীল করার স্বার্থ হাসিল করতে চায়৷ আর এ স্বার্থ হাসিল করার জন্য ব্যানার এবং ছবি ব্যবহার অবশ্যই প্রয়োজন ৷

ছাত্র জীবনে উসতাদের মুখে একটা গল্প শুনেছি৷ এক ফকিরকে জিজ্ঞেস করা হল- দুই দুই মিলে কত হয়? ফকির উত্তর দিল- চার রুটি৷ কারণ, সে সময় রুটির ফিকিরই করে৷ তাই তার উত্তরে অটোমেটিকলি রুটির প্রসঙ্গ চলে আসে৷ ইসলামী আন্দোলনও তার সকল কর্মসূচিতে ইসলামী খিলাফতের বিষয়টি চিন্তা করে৷

আমি সবিনয়ে জানতে চাচ্ছি- মিছিলের ব্যানার যদি সমস্যা না হয়, ওয়াজ মাহফিল, সভা-সেমিনার, সম্মেলন সমাবেশের ব্যানার যদি সমস্যা না হয়, তাহলে ত্রাণের ব্যানারে সমস্যা কেন হবে? ত্রাণ বিতরণ দীনি কাজ- বাকিগুলো কি দীনি কাজ নয়? কই, কাউকে তো কখনো বলতে শুনি নাই- যারা ব্যানার নিয়ে মিছিল করে, সমাবেশ, সম্মেলন, ওয়াজ মাহফিল করে, তাদের সেখানে যাবেন না৷ তাহলে- যারা ব্যানার নিয়ে ত্রাণ দিবে তাদের কাছে ত্রাণের জন্য টাকা দিবেন না, এটা কেন বলা হবে?
বিজ্ঞজন বলেন- “মানুষের বিবেক অনেক বড় আদালত”৷

লেখক পরিচিতি:
ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলনের সাবেক কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি
মাসিক আল-কারীম এর সহযোগী সম্পাদক।

1435Shares