| |

পটুয়াখালী-৩ আসনে ভোটের সমীকরণ পাল্টে দিতে পারে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ

প্রকাশিতঃ ৬:৩১ অপরাহ্ণ | ডিসেম্বর ০৯, ২০১৭

আব্দুল ওয়াহাব, বিশেষ প্রতিবেদকঃ সাগরকণ্যা খ্যাত পটুয়াখালী-৩ (দশমিনা-গলাচিপা) আসন ঘিরে নির্বাচনী আবহাওয়া সরগরম হচ্ছে। আসনটি এককালে আওয়ামী লীগের দুর্গ হিসেবে পরিচিত ছিল। সংসদ সদস্য হিসেবে সামরিক শাসন আমল ছাড়া সবকটি নির্বাচনে আওয়ামীলীগ প্রার্থী এ আসনে বিজয়ী হয়েছেন। বর্তমানে এই দুর্গে অনিশ্চয়তা সৃষ্টি হয়েছে। প্রার্থী মনোনয়নে আওয়ামীলীগ ভুল করলে এবং বিএনপি যদি ক্লিন ইমেজের প্রার্থী মনোনয়ন দেয় তাহলে আসনটি আ’লীগের বেহাত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে বলে মনে করেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দলের প্রবীণ অনেক নেতা। অন্যদিকে জাতীয় পার্টির তেমন একটা প্রভাব নেই এ আসনে। সরাসরি জামায়াতে ইসলামী নির্বাচনে অংশ নিতে না পারলে এ ভোটও বিএনপির দিকে ঝুঁকে যাবে।

তবে পীর সাহেব চরমোনাই নেতৃত্বাধীন দল ইসলামী আন্দোলনের বেশ প্রভাব রয়েছে এলাকার সব কয়টি ইউনিয়নে। যার প্রভাব পরিলক্ষিত হয় ইউনিয়ন পরিষদ ও উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে। এ দুই পরিষদ নির্বাচনে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক ভোট পেয়েছিল এ দলটির প্রার্থীরা। আগামী সংসদ নির্বাচনে বড় দুই দলের প্রার্থীর জয়-পরাজয়ের নিয়ামক শক্তি হিসেবে দাঁড়াতে পারে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ। রাজনৈতিক মহলে এ নিয়ে চলছে নানা সমীকরণ।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে সভা-সমাবেশসহ দলগুলোর বিভিন্ন দিবসকে কেন্দ্র করে নির্বাচনী এলাকায় সরব রয়েছেন আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও ইসলামী আন্দোলনের সম্ভাব্য প্রার্থীরা। ইসলামী আন্দোলন ছাড়া অন্য দলের প্রার্থীরা দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার জন্য নিজেদের অস্তিত্বের জানান দিতে নানা ধরণের প্রোগ্রামাদিতে সরব হচ্ছেন। প্রার্থী বাচাই নিয়ে ইসলামী আন্দোলন কোন ঝামেলায় পড়বেনা বলে দলীয় সূত্র নিশ্চিত করেছেন। তাঁরা জানান, ইসলামী আন্দোলনের কর্মীরা নেতৃত্বেরর জন্য লালায়িত নয়। তবে সিদ্ধান্ত মোতাবেক যা করা হবে, সকলেই ঈমানী তাগাদায় তা মেনে নেন।

বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, দশমিনা গলাচিপা উপজেলায় দলীয় প্রার্থী নির্ধারণে কোন্দলের আশংকা রয়েছে আ’লীগ বিএনপির হাই কমান্ড।

এই আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়নপ্রত্যাশীরা হলেন- এই আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী আ খ ম জাহাঙ্গীর হোসাইন, সাবেক সংসদ সদস্য গোলাম মাওলা রনি, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আ’লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট ফোরকান মিয়া, কেন্দ্রীয় যুবলীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক কামরান শাহীদ মহাব্বাত প্রিন্স, স্বেচ্ছাসেবক লীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সম্পাদক আরিফুর রহমান টিটু, দশমিনা উপজেলা আ’লীগের সভাপতি আব্দুল আজীজ মিয়া, দশমিনা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাড. শাখাওয়াত হোসেন, কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. ফজলুল হক ও এস এম শাহজাদা।

অপরদিকে এ আসনে এখন পর্যন্ত বিএনপির সম্ভাব্য মনোনয়নপ্রত্যাশী চারজনের নাম বেশ জোরেশোরে আলোচনা চলছে। এরা হলেন- সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ মো. শাহজাহান খান, বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য হাসান মামুন, গলাচিপা উপজেলা বিএনপির সভাপতি শিল্পপতি গোলাম মোস্তফা ও কর্ণেল (অব.) ইসহাক মিয়া। নেতাকর্মীদের দ্বারে দ্বারে ঘুরে নিজের দলীয় মনোনয়নের পক্ষে জনমত তৈরির চেষ্টা করছেন তারা।

45Shares