| |

নির্বাচন কমিশন ও প্রশাসন দলীয় প্রতিষ্ঠানের পরিচয় দিয়েছে: ডা. মুখতার হোসাইন

প্রকাশিতঃ ৩:৪০ পূর্বাহ্ণ | মে ১৭, ২০১৮

শেখ নাসির উদ্দিন, খুলনা প্রতিনিধিঃ ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর প্রেসিডিয়াম সদস্য আলহাজ্ব ডাঃ মোখতার হোসাইন বলেছেন, নির্বাচন কমিশন তাদের নিরপেক্ষতার পরিচয় দিতে ব্যর্থ হয়েছে, সেই সাথে প্রশাসনও তাদের নিরপেক্ষতার পরিচয় দিয়েছে। যার প্রমাণ গত (মঙ্গলবার) নির্বাচন দেখেছে খুলনাসহ সারাদেশ। নির্বাচন কমিশন ও প্রশাসন নিরপেক্ষ নয় বরং একটি দলীয় পরিচয় দিয়েছে। যা দেশের জন্য হুমকি। তিনি আরও বলেন, বর্তমান নির্বাচন কমিশন ও অন্ধ প্রশাসন সরকারের পক্ষে কাজ করতে গিয়ে জনগণের ভোটাধিকার কেড়ে নিয়েছে। এমন সুকৌশলে ভোট চুরি করে জনগণকে হয়রানি করার কি দরকার ছিল?

তিনি বুধবার (১৬ মে) রাতে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর নির্বাচনোত্তর পর্যালোচনা বৈঠকে এ কথা বলেন। কেন্দ্রীয় এ নেতা বলেন, ২২, ২৪, ২৬, ২৭নং ওয়ার্ডে প্রার্থীকেই কেন্দ্রে ঢুকতে দেয়া হয়নি বরং প্রার্থী ভোট দিতে গেলে বলা হয়েছে আপনার ভোট দেওয়া হয়ে গেছে। এ রকম ঘটনা হাজার-হাজার ভোটারের সাথে ঘটেছে। আরও বলা হয়েছে ব্যালট পেপার শেষ। বিভিন্ন ভোট কেন্দ্র দখল, ভোট ডাকাতি, ভোটারদের হয়রানি, ভোটারকে ভোট না দিতে দেওয়া, এজেন্টদের বুথ থেকে বের করে দেওয়া, এজেন্টদের মারধর ও জাল প্রদানে সহযোগিতা করেছে পুলিশ। নিরাপত্তার ভয়ে অনেক ভোটাররা ভোট কেন্দ্রেই আসেনি।

সরকারকে উদ্দেশ্য করে ডাঃ মোখতার হোসাইন বলেন, এ রকম তামাশার নির্বাচন না দিয়ে জনগণকে তাদের অধিকার নিয়ে বাঁচতে দিন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ’র নায়েবে আমীর হাফেজ মাওঃ আব্দুল আউয়াল, মেয়র প্রার্থী মাওলানা মুজ্জাম্মিল হক, ইঞ্জিনিয়ার রজব আলী, দলের নগর সহ-সভাপতি শেখ মোঃ নাসির উদ্দিন, নগর সেক্রেটারী মুফতী আমানুল্লাহ, জেলা সেক্রেটারী শেখ হাসান ওবায়দুল করীম, মুফতী মাহবুবুর রহমান, মাওঃ ফয়সাল আহমেদ, ইসলামী শ্রমিক আন্দোলনের নগর সভাপতি আলহাজ্ব জাহিদুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, যুব আন্দোলনের এইচ এম জুনায়েদ মাহমুদ, মাওঃ ফরিদ উদ্দিন আযহার, ছাত্র আন্দোলনের জেলা সভাপতি শেখ আমীরুল ইসলাম, সহ সভাপতি এসকে নাজমুল হাসান, নগর সহ সভাপতি মুহা. সাইফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক এইচ এম খালিদ সাইফুল্লাহ, আব্দুস সালাম জায়েফ সহ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীগণ উপস্থিত ছিলেন।

919Shares