| |

নির্বাচনী প্রতিহিংসার জের : চরমোনাই’র মুরিদকে মারধর, মামলার ভয়ভীতি, জিকিরে বাধা

প্রকাশিতঃ ৪:০২ পূর্বাহ্ণ | মে ২৬, ২০১৮

খুলনা প্রতিনিধিঃ শুক্রবার (২৫ মে) বিকাল ৫টায় খুলনা নগরীর সোনাডাঙ্গা থানার নুরানী মসজিদে নির্বাচনী প্রতিহিংসার ফলে নবনির্বাচিত কাউন্সিলর মোঃ হাফিজুর রহমানের সমর্থক গোষ্ঠি রমোনাই পীরের মুরিদদের সাপ্তাহিক হালকায় জিকির ও তালিমে বাধা প্রদান ও মারধর করে তালিম ও হালকায় জিকির বন্ধ করে দেয়।

স্থানীয়ভাবে জানাগেছে, সদ্য সমাপ্ত কেসিসি নির্বাচনে নবনির্বাচিত ১৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ হাফিজুর রহমানের সমর্থক মোঃ মুজিবার রহমান, ছিদ্দিক খা, শামীম সহ ৮/১০ জনের দল নুরানী মসজিদে তালিম ও হালকা জিকির চলাকালে বাধা প্রদান ও আবুল হোসন ও রমজান আলীকে মারধর করে তালিম ও হালকায় জিকির বন্ধ করে দেয়। তারা হামলা ও মামলার ভয়ভীতি দেখিয়ে বলে যে কাউন্সিলর হাফিজ সাহেব এ মসজিদে হালকা ও তালিম বন্ধ করার নির্দেশ দেয়ার পরও তোরা তালিম ও হালকা জিকির করছো, তোদের এতো সাহস কে দিল? এইবলে তাদেরকে মারধর করে মসজিদ থেকে বের করে দেয়।

চরমোনাইর পীরের মুরীদের মারধর ও তাদের উপর হামলা-মামলার ভয়ভীতি এবং হালকায় জিকির ও তালিম বন্ধ করায় চরমোনাইর মুরিদসহ এলাকাবাসীদের মধে তীব্র ক্ষোভ ও উত্তেজনা বিরাজ করছে।

একটি সূত্র জানান যে, বাংলাদেশ মুজাহিদ কমিটি একটি অরাজনৈতিক সংগঠন। তাদের পরিচালনায় দেশব্যাপী মসজিদে মসজিদে সাপ্তাহিক হালকায় জিকির ও তালিম চলে আসছে। দলমত নির্বিশেষে  তালিম ও হালকায় জিকিরে ধর্মপ্রাণ মুসলমান উপস্থিত থাকেন। মুজাহিদ কিমিটির পরিচালনায় খুলনা নগরীর সোনাডাঙ্গা থানার নুরানী মসজিদে অর্ধশতাব্দী যাবত সাপ্তাহিক হালকায় জিকির ও তালিম অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে।

সুত্র আরও জানান, কেসিসি’র ১৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ হাফিজুর রহমানের পক্ষে চরমোনাইর মুরিদগণ নির্বাচনী কাজ না করায় এবং চরমোনাইর পীরের সমর্থকের প্রার্থীর পক্ষে কাজ করার ফলে নির্বাচনী পরবর্তী প্রতিহিংসার কারনে এ হামলা করে তালিম ও হালকায় জিকির কাউন্সিলরের নির্দেশে তার সমর্থকগণ বন্ধ করে দিয়েছে।

এদিকে সোনাডাঙ্গা থানা মুজাহিদ কমিটি ছদর (সভাপতি) আলহাজ্ব মোঃ হাবিবুর রহমানের সাথে আলাপকালে তিনি জানান যে, এ ঘটনার খবর জানতে পেয়ে নুরানী মসজিদ তথা থানাধীন মুজাহিদেরকে শান্ত থাকার পরামর্শ দিয়েছি এবং বলেছি যে উর্ধ্বতন কমিটিকে জানানো হয়েছে তাদের পক্ষ থেকে নির্দেশ  পেলে আমাদের করনীয় কি তা সকলকে জানানো হবে।

রিপোর্ট লেখা পূর্ব পর্যন্ত কাউন্সিলর হাফিজুর রহমানকে একাধিকবার ফোন করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

এদিকে বাংলাদেশ মুজাহিদ কমিটি খুলনা জেলার সাংগঠনিক সম্পাদক জানান রাত ১১টা পর্যন্ত যৌথ মিটিং অনুষ্ঠিত হয় এবং শনিবার বেলা ১২টায় সংবাদ সম্মেলনের ঘোষণা করা হয়।

1799Shares