| |

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর একলা চলার ১০ কারণ

প্রকাশিতঃ ৪:৫৪ অপরাহ্ণ | সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৮

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ। ইসলামী রাজনৈতিক দল সমূহের মাঝে একটি শক্তিশালী দলের নাম। ইসলামী নীতি আদর্শের উপর যার পথচলা। ১৯৮৭ সালে প্রতিষ্ঠিত এ দলটি আজ পর্যন্ত রাজনৈতিক কোন ভূল করেনি। নীতি আদর্শের ক্ষেত্রে কোন আপোষকামীতা করেনি।

দেশে জোট-মহাজোটের রাজনীতি চলছে। কিন্তু এ দলটি মাথায় বহু অপবাদের বোঝা বহন করে চলছে তবুও কোন জোটে যায়নি। প্রয়োজনে একটি আসনেও জিতবে না তবুও কারো সঙ্গে জোট করবে না। কিন্তু কেন?

১. জোট-মহাজোটের প্রধান দলগুলো ইসলামের আদর্শের সঙ্গে সাংঘর্ষিক আদর্শ লালন করে। তারা পরিস্কার বলেই দিয়েছে আপনারা করেন নীতির রাজনীতি আমরা করি ক্ষমতার রাজনীতি। তাদের পরিস্কার এ ঘোষনার পর আদর্শিক কোন দল তাদের সঙ্গে জোট করতে পারে না।

২. যারা পীর সাহেব চরমোনাই রহ. এর ৮ দফা মানেনি। আল্লামা আহমদ শফি দা. বা. এর ১৩ দফা মানেনি তাদের সঙ্গে কিভাবে জোট করা যায়।

৩. বড় বড় দলগুলো পুরোটাই দূর্নীতিগ্রস্থ। তাদের সঙ্গে জোট করলে তাদের দূর্নীতির কালিমা নিজেদের গায়েও লাগবে।

৪. জোটের প্রধান দলগুলো ক্ষমতায় গিয়ে ইসলাম বিরোধী আইন পাস করবে, তাদের সঙ্গে জোট করলে সেই আইনকরণে নিজেরাও শরিক হতে হবে।

৫. সরকারী দল বিরোধী দলের উপর নির্যাতন-নিপীড়ন চালাবে। নানা অপকর্মে জড়িয়ে যাবে। শরিক দল হিসেবে সেই অপরাধ-অপকর্মে নিজেরাও শরিক বিবেচিত হবে।

৬. প্রধান প্রধান দলগুলো মানবরচিত আইনে বিশ্বাসী, আল্লাহর আইনে বিশ্বাসী নয়। এ হিসেবে তারা তাগুত। ইসলামী দল তাদের অধিনে যাওয়ার অর্থ হলো তাগুতের অধিনে যাওয়া এতে ইসলাম অপমানিত হয়।

৭. বড় বড় দলগুলোর সঙ্গে জোট করলে নারী নেতৃত্ব মানতে হবে। নবীজি সা. এর হাদীস অনুযায়ী নারী নেতৃত্বে কোন সফলতা নেই।

৮. ইসলামী দল জোট করবে ইসলামী নীতি আদর্শের ভিত্তিতে। আসন ভাগাভাগীর ভিত্তিতে নয়। ইসলামী নীতি আদর্শের ভিত্তিতে জোট করতে কেউই আগ্রহী নয়। তাই ইসলামী আন্দোলন কারো সঙ্গে জোট করতে পারে না।

৯. অন্যান্য ইসলামী দলগুলোও ক্ষমতামূখী, ইসলাম কায়েমের মানসিকতা তাদের নেই। অনেকে তো ইসলাম কায়েম হবে এমন বিশ্বাসই রাখেনা। তাই তারা মন্দের ভালোর দিকে ধাবিত।তারা ঠেকানোর রাজনীতিতে অভ্যস্ত। দীন-ইসলাম কায়েমের জন্য যে, দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা নিয়ে এগিয়ে যেতে হয়। কন্টকাকীর্ণ পথে চলতে হয় এতে তারা রাজি নয়। তাই ইসলামী দলসমূহের সতন্ত্র ঐক্যতেও তারা বিশ্বাসী নয়। এ কারণে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ অন্যান্য ইসলামী দলের সাথেও ঐক্য করার সুযোগ পায় না।

১০. জামায়াত আল্লাহর আইনের কথা বললেও ইসলামী দলসমূহের সঙ্গে ঐক্যের স্বার্থে মওদূদিয়্যাত ত্যাগে সম্মত নয়। বরং হেকমতে আমলির দর্শন মতে এদিক ওদিক যেতেই অভ্যস্ত।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ইসলামী ঐক্য নীতির ভিত্তিতে ঐক্যের চেষ্টা প্রচেষ্টার পর আদর্শহীন এসব দলগুলোর চিন্তা বাদ দিয়ে একলা পথ চলছে। ইসলামের সুমহান আদর্শের প্রতি গণমানুষকে আহবান করছে।

 

লেখকঃ

মাওলানা আব্দুর রাজ্জাক

সাংগঠনিক সম্পাদক, ইসলামী আন্দোলন ফেনী জেলা ও ফেনী-৩ আসনে সংসদ সদস্য পদপ্রার্থী।

588Shares