| |

ইসলামী আন্দোলনের জোট সাধারণ মানুষের সঙ্গে: অধ্যক্ষ ইউনুস আহমাদ

প্রকাশিতঃ ৭:২৪ অপরাহ্ণ | অক্টোবর ০৫, ২০১৮

ইসলামী আন্দোলনের মহাসচিব অধ্যক্ষ মাওলানা ইউনুস আহমদ বলেন, আমাদের অনেকেই বলছে কেন আমরা জোট মহাজোটে যাচ্ছি না। এর কারণ মানুষ জোট মহাজোটে গিয়ে প্রতারিত। তাই দেশের লাখো কোটি মানুষ ইসলামী আন্দোলনের ছায়াতলে ছুটে এসেছে।

তিনি বলেন, আমরা সাধারণ মানুষের সঙ্গে জোট করেছি, তাদের নিয়ে থাকতেই শান্তি পাই। আমাদের এসি রুমের প্রয়োজন নেই, এসি গাড়ি বাড়ির প্রয়োজন নেই। আমরা সাধারণ জীবন যাপনেই ভালো থাকি।

আজ (৫ অক্টোবর) বাদ জুমা ইসলামী আন্দোলন আয়োজিত মহাসমাবেশের বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।

সমাবেশের সভাপতিত্ব করছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমীর মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম পীর সাহেব চরমোনাই।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশে প্রেসিডিয়াম সদস্য আল্লামা নূরুল হুদা ফয়েজী বলেন, আমরা আজ প্রমাণ করতে চাই, সব মার্কা দেখা শেষ হাতপাখার বাংলাদেশ।

তিনি বলেন, আর দেরি নয়, আমাদের শ্রম ও ঘাম দিয়ে ইসলামকে বিজয়ী করতে আমীরের নির্দেশে ঝাপিয়ে পড়তে হবে।

তিনি বলেন, আমরা কালো টাকার রাজনীতি করি না, অবৈধ কারো সাথে আমাদের আতাত নেই। আমাদের শক্তি জনগণের শক্তি। আমাদের শক্তি আমাদের বিশাল জানবাজ কর্মী।

ইসলামী শ্রমিক আন্দোলনের সভাপতি অধ্যাপক আশরাফ আলী আকন বলেন, আমাদের দেশের আয়ের অন্যতম উৎস পোশাক শ্রমিকরা। কিন্তু তাদের বেতন এতটাই কম যা উল্লেখ করার মতো নয়।

তিনি বলেন, পোশাক শ্রমিকদের সর্বনিম্ন বেতন ১৬ হাজার টাকা করতে হবে। কৃষকরা আজ সঠিক দাম পাচ্ছে না। তাদের শোষণ করে খাচ্ছে একটি চক্র। এ চক্র না ভাঙতে পারলে আগামীতে ইসলামী শ্রমিক আন্দোলন কঠোর আন্দোলন গড়ে তুলবে।

তিনি বলেন, আজ বাংলাদেশের রাজনীতি খাই খাই রাজনীতি। খাই খাই জোট। একে অন্যের সঙ্গে চুক্তি করে দেশকে খাচ্ছে। এ রাজনীতির চক্রকে ভাঙতে হবে।

ইসলামী আন্দোলনের যুগ্ম মহাসচিব অধ্যক্ষ মাওলানা এটি এম হেমায়েত উদ্দীন বলেন, স্বাধীনতার এত বছর পরেও মানুষের মুক্তি নাই, তাদের শান্তি তাই। তারা এখন শান্তি চায়। তাই পীর সাহেবে চরমোনাইয়ের নেতৃত্বে একত্র হয়েছে।

তিনি বলেন, আগামী নির্বাচনে শোষিত মানুষের, ইসলামপ্রিয় মানুষের নেতৃত্বের হাতপাখা নিয়ে গণজোয়ার সৃষ্টি হবে। দুর্নীতিবাজদের কবর হবে বঙ্গোপসাগরে।

তিনি আরও বলেন, আপনারা দোয়া করুন, দেশে ইসলামী শাষন দেখে মৃত্যুবরণ করতে চাই।

সমাবেশে ইসলামী আন্দোলনের যুগ্ম মহাসচিব গাজীপুর ৫ আসনের সংসদ সদস্য পদপ্রার্থী গাজী আতাউর রহমান বলেন, আগামী নির্বাচনে নৌকা, লাঙল, ধানের শীষকে মুকাবেলায় প্রস্তুত ইসলামী আন্দোলন।

তিনি বলেন, আগামী নির্বাচনে ভোট চোর আর ডাকাতদের থামিয়ে দেবে ইসলামী আন্দোলন।

তিনি বলেন, আজ পুরো ঢাকা শহরই সমাবেশে পরিণত হয়েছে। এ সমাবেশ প্রমাণ করে সারাদেশের মানুষ ইসলামকে ক্ষমতায় দেখতে চায়। দুর্নীবাজদের পছন্দ করে না।

তিনি বলেন, আমরা দেশ থেকে ঘুষ চুরি দুর্নীতি দূর করতে চায়, এ জন্য কারও সাথে আমরা জোট করছি না। কারণ আজ যে জোট মহাজোট হচ্ছে তারা সবাই দুর্নীতিবাজ।

তিনি বলেন, অনেক আলেমও একন দুর্নীতিবাজদের পেছনে ছুটছে। আমরা আপনাদের আহ্বান করছি, অন্যায়ের সহযোগী হবেন না। ইসলামী আন্দোলন আজ গণজোয়ার সৃস্টি করেছে। শান্তি প্রতিষ্ঠায় ইসলামী আন্দোলনে আসুন।

সমাবেশে নেতৃবৃন্দ বলেন, স্বাধীনতার পর যে সমস্ত দল ক্ষমতায় এসেছে সবাই দুর্নীতি করেছে। সবাই দেশকে লুটে পুটে খেয়েছে। এখন সময় হয়েছে পরিবর্তনের। সময় এসেছে বাংলাদেশকে দুর্নীতিমুক্ত করার।

নেতৃবৃন্দ বলেন, দেশে এখন ইসলামী শাসন প্রতিষ্ঠা ছাড়া মানুষের মুক্তি নেই। আজ দেশে নিরাপত্তা নেই, রাতে মানুষ নিরাপদে বাসায় ফিরতে পারবে কিনা তার নিশ্চয়তা নেই। এসবের কারণ হলো কুরআনের বিপক্ষে মানুষের অবস্থান।

ইসলামী আন্দোলনের কেন্দ্রীয় নেতা মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাকী ও মাওলানা নেছার উদ্দীনের সঞ্চালনায় সমাবেশে উপস্থিত রয়েছেন, দলের নায়েবে আমির মুফতি সৈয়দ ফয়জুল করীম, প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দ মুসাদ্দেক বিল্লাহ আল মাদানী, আল্লামা নূরুল হুদা ফয়েজী, মহাসচিব অধ্যক্ষ মাওলানা ইউনুস আহমদ, সহকারী মহাসচিব অধ্যক্ষ এটিএম হেমায়েদ উদ্দীন, মাওলানা গাজী আতাউর রহমান, মাওলানা আবদুল কাদের, মাওলানা মাহবুবুর রহমান, প্রচার সম্পাদক মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ুম, ঢাকা দক্ষিণ মহানগর সভাপতি মাওলানা ইমতিয়াজ আলম, ঢাকা উত্তর সভাপতি মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদ।

 

আওয়ার ইসলাম

2258Shares